পশ্চিমবঙ্গ

বর্ধমান মেডিক্যালে এক ব্যক্তির পেট থেকে বের করা হল সাড়ে ৭ইঞ্চি লম্বা ডিওডোরেন্টের বোতল

FOCUS BENGAL

FOCUS BENGAL

ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: জটিল অস্ত্রোপচারে সাফল্য পেল বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শল্য চিকিৎসকের একটি দল। এক ব্যক্তির পেট থেকে অস্ত্রোপচারের পর বের করা হলো একটি আস্ত ডিওড্রেন্টের বোতল। প্রায় দুঘন্টার অপারেশন শেষে খোদ চিকিৎসকরাই আশ্চর্য্য হয়ে গেছেন কিভাবে একজন মানুষের পেটের ভিতরে একটা গোটা ডিওড্রেন্টের বোতল চলে গেল এই ভেবে। যদিও  অস্ত্রোপচারের পর রোগী সুস্থ আছেন বলেই জানিয়েছেন জেনারেল সার্জেন অরিন্দম ঘোষ।তিনি জানিয়েছেন, আপাতত সাতদিন রোগীকে হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে।

বিজ্ঞাপন

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুধবার দক্ষিণ ২৪পরগনার পাথর প্রতিমা থেকে পেটে ব্যথা এবং পায়খানা না হওয়ার সমস্যা নিয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আসেন এক ব্যক্তি। চিকিৎসক তাঁকে প্রাথমিকভাবে দেখে ভর্তি করে অস্ত্রোপচারের জন্য বলেন। এরপর পেটের এক্স করানো হয় ওই ব্যক্তির। দেখা যায় পেটের মধ্যে রয়েছে একটি আস্ত ডিওড্রেন্টের বোতল। যেটির মাপ ঢাকনা সহ সাড়ে ৭ ইঞ্চি লম্বা। তড়িঘড়ি অস্ত্রোপচারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। মেডিক্যালের আর.এম.ও. জেনারেল সার্জারি অরিন্দম ঘোষের নেতৃত্বে এই অপারেশন হয়। সঙ্গে ছিলেন দুই পিজিটি সুতপা কর্মকার, দীপক গুপ্ত। এনাস্থেসিস্ট চিকিৎসক ছিলেন সৌরভ দে। প্রায় ২ ঘণ্টার সফল অস্ত্রোপচারের পর পেট থেকে বোতলটি বের করে আনেন তাঁরা।

চিকিৎসক অরিন্দম ঘোষ বলেন, কোন কারণে ওই ব্যক্তির পায়ুদ্বার দিয়ে ডিওড্রেন্টের বোতলটি ২০ দিন আগে ঢুকে যায়। তারপর থেকে তিনি পেটের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছিলেন। দিনপাঁচেক আগে থেকে তাঁর পায়খানা বন্ধ হয়ে যায়। বর্ধমানে ভালো চিকিৎসা হয় শুনে তিনি হাসপাতালে আসেন। তারপরেই তাঁর অস্ত্রোপচারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। আপাতত রোগী স্থিতিশীল। সাতদিন তাঁকে পর্যবেক্ষণের পর ছেড়ে দেওয়া হবে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, যে কারণে এই বোতলটি তার পেটের ভিতরে চলে গিয়েছিল তারজন্য তাঁর পেটের ভিতরের খাদ্যনালীও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেইগুলিও অস্ত্রোপচারে ঠিক করা হয়েছে। এই সমস্যার কারণে তাঁর অন্ত্রও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সেটিও ভবিষ্যতে অস্ত্রোপচার করতে হবে। তবে এখন সে সুস্থ। হাসপাতালের সুপার তাপস ঘোষ বলেন, এই ধরনের সফল অস্ত্রোপচার আমাদের হাসপাতালের উন্নত চিকিৎসা পরিষেবার দিকটিকেই আরো উজ্জ্বল করেছে। সুদূর ২৪ পরগণা থেকে আমাদের হাসপাতালের রোগী আসছেন। এবং তাঁদের জটিল অপারেশন হচ্ছে। তারা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন এটা আমাদের কাছে বিশাল ব্যাপার। চিকিৎসকদের সাধুবাদ জানাই।

Advertisement